আলোচিত সংবাদ
সত্যের কথা বলে

ধর্ষণের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের ‘সর্বোচ্চ অবস্থান’ চান রওশন এরশাদ

রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী পর্যায় থেকে শুরু করে আইন ও বিচার ব্যবস্থার প্রতিটি স্তরে ধর্ষণের বিরুদ্ধে ‘সর্বোচ্চ অবস্থান’ নিশ্চিতের দাবি জানিয়েছেন জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ।

বুধবার রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান তিনি।

জাতীয় পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদ বলেন, “নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধে দেশে প্রচলিত আইনে যদি কোনো দুর্বলতা থাকে তবে তা এখনই শোধরাতে হবে।”

তিনি বলেন, “দেশজুড়ে একের পর এক বীভৎস ধর্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। সেই সাথে নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ঘটনা নতুন করে ভাবিয়ে তুলছে।

“এখনই সময় সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী পর্যায় থেকে আইন ও বিচার ব্যবস্থার প্রতিটি স্তরে ‘ধর্ষণের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ অবস্থান’ এই বার্তা পৌঁছে দিতে হবে।”

সারা দেশে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সংগঠনের সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি চলছে; তাদের প্রতিবাদী স্লোগানে উত্তাল হয়ে উঠেছে রাজধানীর শাহবাগ, উত্তরা।

বাংলাদেশে অব্যাহত ধর্ষণের ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়ে নারীর প্রতি সহিসংতার মামলাগুলোর দ্রুত বিচারে আইন সংস্কারের আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ।

রওশন এরশাদও মনে করেন, নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ‘দুর্বলতা’ শোধরানো প্রয়োজন।

তিনি বলেন, “নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধের জন্য দেশে একাধিক আইন আছে। আইনে কঠোর শাস্তির বিধান রয়েছে। আলাদা বিচারের জন্য বিশেষ ট্রাইব্যুনাল রয়েছে।

“তারপরও স্পষ্ট যে, বর্তমান আইনি কাঠামো এসব অপরাধ দমনে কার্যকর হচ্ছে না। আইনি কাঠামো কার্যকর করতে হলে ধর্ষণের ক্ষেত্রে আইন ও বিচার ব্যবস্থায় যদি কোন দুর্বলতা থেকে থাকে তা শোধরাতে হবে। কোনো নারী ও শিশু নির্যাতনের শিকার হলে অপরাধীকে দ্রুত আইনের আওতায় আনতে হবে।”

প্রযুক্তির ‘যথেচ্ছ ব্যবহারের কারণে’ সমাজে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে উল্লেখ করে রওশন এরশাদ বলেন, “প্রযুক্তির ইতিবাচক ব্যবহারের পাশাপাশি উন্নত মূল্যবোধের চর্চায় গুরুত্ব বাড়াতে হবে। অপরাধীদের বিচার নিশ্চিত করার পাশাপাশি নৈতিকতার চর্চা ও সামাজিক আন্দোলন  নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে সহায়ক হবে।

© আলোচিত সংবাদ।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.