আলোচিত সংবাদ
সত্যের কথা বলে

শিষ্যদের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট ডমিঙ্গো

দীর্ঘ ৭ মাস পর বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপের ব্যানারে মাঠে নামার সুযোগ পেয়েছে ক্রিকেটাররা। দীর্ঘ বিরতির কারণে খাপ খাইয়ে নিতে কষ্ট হচ্ছে ব্যাটসম্যানদের। মিস্টার ডিপেন্ডেবল মুশফিকুর রহিম ছাড়া ব্যাট হাতে ধারাবাহিকতা ছিলনা কারোই। তবে তরুণ আফিফ-তৌহিদ হৃদয়-ইরফান শুক্কুর কিংবা শেখ মেহেদিরা নিজেদের প্রমাণের চেষ্টা করেছেন।
অন্যদিকে বোলাররা দুর্দান্ত ফর্ম দেখিয়েছেন। বিশেষ করে জাতীয় দলের পেসার রুবেল হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদ ফিরেছেন ছন্দে। সবমিলিয়ে এই আসরে শিষ্যদের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট জাতীয় দলের হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।
বৃহস্পতিবার অনলাইনে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে ডমিঙ্গো বলেন, আমি খুবই খুশি। এই টুর্নামেন্টের কারণে অনেক ভালো একটা প্রভাব পড়বে ক্রিকেটারদের ওপর। ৭ মাস পর ক্রিকেটাররা প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফিরেছে।  উইকেট কিছুটা সহজ হলেও, ব্যাটসম্যানরা ধীরে ধীরে রান পাচ্ছে। মুশফিক, রিয়াদ, তামিমরা আস্তে আস্তে ফর্মে ফিরছে। এছাড়া তরুণ অনেক ক্রিকেটার খেলছে। এতে তাদেরকেও পরখ করে নেয়ার সুযোগ থাকছে।
এই টুর্নামেন্টে জাতীয় দলের কিংবা আশেপাশে থাকা ক্রিকেটারদের পাশাপাশি খেলেছেন বিশ্বকাপজয়ী যুবারা। তরুণদের পারফরম্যান্সও বেশ মনে ধরেছে জাতীয় দলের হেড কোচের।
ডমিঙ্গো বলেন, অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ জয়ী দলের রিশাদ, হৃদয় ওরা অনেক ভালো খেলছে। ওদের খেলা আমি বেশ উপভোগ করছি। ওরা খেলায় ফিরেছে এটাই বড় বিষয়। ওদের এনার্জি লেভেল অনেক ভালো। অভিজ্ঞদের পাশাপাশি তরুণরাও ধীরে ধীরে ফর্মে ফেরার চেষ্টা করছে।
তবে এই টুর্নামেন্টে যারা ভালো করেনি তাদেরকে এখনই হতাশ হয়ে না পড়ার আহ্বান ডমিঙ্গোর। এখানেই ক্রিকেটার বাছাইয়ের কাজে ইতি টানতে চাননা কোচ। বরং পরবর্তীতেও ভালো খেলে ম্যানেজমেন্টের সুনজরে আসার সুযোগ থাকছে সবার, সেটি মনে করিয়ে দিলেন কোচ।
ডমিঙ্গো বলেন, আমার মনে হয় ক্রিকেটারদের যাচাই-বাছাইয়ের জন্য এই টুর্নামেন্ট উপযুক্ত প্লাটফর্ম নয়। কারণ সব ক্রিকেটাররা অনেকদিন মাঠের বাইরে ছিলো, ক্রিকেটের বাইরে ছিলো। অনুশীলনের বাইরে ছিলো। তাই এখনই কাউকে পরখ করা সম্ভব নয়। তবে, তরুণ আর নতুন ক্রিকেটাররা খেলছে। তাদেরকে পরখ করার একটা সুযোগ তৈরি হয়েছে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.