আলোচিত সংবাদ
সত্যের কথা বলে

পাড়ি দিতে হবে আর সামান্য পথ মার্কিন নির্বাচন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দৌড়ে অনেকটা এগিয়ে জো বাইডেন। ম্যাজিক ফিগারের দেখা পেতে পাড়ি দিতে হবে আর সামান্য পথ। কিন্তু সেই সামান্য পথ পাড়ি দিতেই অনেকটা বেগ পেতে হচ্ছে তাকে। নির্বাচন নিয়ে এরই মধ্যে তৈরি হয়েছে নানা জটিলতা।

আদৌও কে হচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট তা কিন্তু এখন নিশ্চিত করে বলা কঠিন হয়ে পড়েছে। সেই সঙ্গে যোগ হয়েছে নানা হিসেব নিকেশ। অনেকেই মনে করছেন যে কোন সময় ফল পাল্টেও যেতে পারে। তাই কে হচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে আরো বেশ কিছু সময়।

ভোট গণনা বাকি রয়েছে কয়েকটি রাজ্যে। এর মধ্যে যে কোনো একটি ছোট রাজ্যের ফলও পুরো চিত্র পাল্টে দিতে পারে।
এখনও ভোট গণনা শেষ হয়নি পেনসিলভানিয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা, জর্জিয়া, নেভাদা এবং আলাস্কার মতো রাজ্যে। এর মধ্যে আলাস্কায় অবশ্য ট্রাম্পের জয় প্রায় নিশ্চিত।

পেনসিলভেনিয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা, জর্জিয়া এই তিনটি বড় রাজ্যেই কিন্তু এগিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প। যদিও প্রাপ্ত ভোটে দুই প্রার্থীর ব্যবধান খুবই সামান্য। এদিকে নেভাদায় বাইডেন এগিয়ে থাকলেও ব্যবধান কমেছে। ফলে কি হতে চলেছে কিছুই বলা যাচ্ছে না আপাতত।

গণনা বাকি থাকা ৬ রাজ্যের মধ্যে শুধু নেভাদায় এগিয়ে রয়েছেন বাইডেন। ফলে বাইডেন যদি শেষ পর্যন্ত এখনে হেরে যান তাহলে তার জেতা খুব কঠিন হয়ে যাবে।

এদিকে এগিয়ে থাকা চার রাজ্যে জয়ের সঙ্গে ট্রাম্পকে আবার নেভাদায় হারাতে হবে বাইডেনকে। তাহলেই হয়তো তিনি ম্যাজিক ফিগার ২৭০ টপকাতে পারবেন। আবার ট্রাম্পের এগিয়ে থাকা কোনো রাজ্যে বাইডেন যদি জিতে যান তাহলে সহজ জয় পাবেন তিনি। কেননা শতাংশের হিসেবে ফারাক দুই দলের মধ্য়ে খুবই সামান্য।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করেতে দেশজুড়ে মোট ৫৩৮ ইলেকটোরাল কলেজ রয়েছে। প্রেসিডেন্ট হতে হলে কমপক্ষে ২৭০টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোটে জয়ের প্রয়োজন হয়। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোর হিসাব অনুযায়ী ইতোমধ্যে বাইডেন জয় পেয়েছেন ২৬৪টি। এদিকে ট্রাম্প জয় পেয়েছেন ২১৪টিতে।

তাই গণনা পুরোপুরি শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোনো ভবিষ্যদ্বাণী করতে রাজি নন ভোট পর্যবেক্ষকরা। তবে ফলাফল যাই হোক, সেটাই কিন্তু শেষ কথা নয়। কারণ, ট্রাম্প আগে থেকেই ‘ভোট কারচুপির’ অভিযোগ তুলে রেখেছেন। ইতোমধ্যে মামলা ছাড়াও সামান্য ব্যবধানে জয়-পরাজয় নির্ধারণী রাজ্যে ভোট পুনর্গণনার দাবিও উঠেছে।

সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার হুমকিও দিয়ে রেখেছেন ট্রাম্প। বাইডেন শিবিরও তার প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে বলেই সূত্রের খবর। তাই মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আদালত পর্যন্ত গড়াতে পারে বলেও ধারণা।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.