আলোচিত সংবাদ
সত্যের কথা বলে

৫০ শতাংশ রোগী জানেনই না তারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত

বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির (বাডাস) সভাপতি অধ্যাপক ডা.এ কে আজাদ খান বলেছেন, ‘উন্নত দেশের চেয়ে আমাদের মতো দেশে ডায়াবেটিস অধিক মহামারি রূপে আর্বিভূত হচ্ছে। মোট রোগীর ৯৫ শতাংশ টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত এবং এ ডায়াবেটিসের শতকরা ৭০ ভাগ সম্পুর্ণরুপে প্রতিরোধযোগ্য। ডায়াবেটিস একবার হয়ে গেলে সারাজীবনের রোগ এবং ব্যয়সাধ্য। কিন্তু নিয়ন্ত্রণে রাখলে সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনযাপন করা যায়।

তিনি বলেন, ‘ডায়াবেটিস ও করোনা দুটোই মহামারি। গবেষণা ফলাফল না থাকলেও ডায়াবেটিস রোগীদের করোনা ঝুঁকি অন্যান্য রোগীদের চেয়ে হয়তো বেশি। আর ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে না থাকলে তা আরও বেশ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠবে। সুতরাং ডায়াবেটিস রোগীদের করোনা নিয়ে বাঁচতে জানতে হবে। ডায়াবেটিস রোগীদের সচেতন করে তুলতে নার্সরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসের প্রাক্কালে দিবসটির গুরুত্ব তুলে ধরে বাডাস-এর উদ্যোগে শুক্রবার রাজধানীর শাহবাগের বারডেমে অনুষ্ঠিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

বিশ্বব্যাপী ডায়াবেটিস রোগ সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করাই এ দিবসের প্রধান লক্ষ্য । ইন্টারন্যাশনাল ডায়াবেটিক ফেডারেশনের (আইডিএফ) তথ্যানুসারে বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ডায়াবেটিসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৪৬ কোটি। ( সূত্র : আইডিএফ ডায়াবেটিস এটলাস, ৯ম সংস্করণ)। বহুলাংশে প্রতিরোধযোগ্য রোগটি এখনই প্রতিরোধ না করা হলে ২০৪৫ সাল নাগাদ রোগীর সংখ্যা প্রায় ৬৯ কোটিতে পৌঁছার শঙ্কা রয়েছে ।

বর্তমানে দেশে ৮৩ লাখেরও বেশি মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত বলে ধারণা করা হয়। যাদের প্রায় অর্ধেকই নারী। তাছাড়া, এ কথাও উল্লেখ করতে হয় যে, ডায়াবেটিস আছে এমন অর্ধেকেরও বেশি মানুষ জানেনই না যে তারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। এছাড়াও বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে ১০০ জনের মধ্যে ২০ জন নারীই গর্ভকালীন ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়, যাদের ৬৫ শতাংশই পরবর্তীকালে টাইপ -২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয় ।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.