আলোচিত সংবাদ
সত্যের কথা বলে

কৃষকরাই করোনাকালে সাহসী ভূমিকা রাখছেন

করোনা মহামারিতে সবকিছু থমকে গেলেও অর্থনীতির চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় গ্রামের কৃষকরাই সাহসী ভূমিকা রাখছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু।

তিনি বলেন, কৃষি এবং কৃষকই যে আমাদের অর্থনীতির প্রাণ, তা এই দুর্যোগকালে ফের প্রমাণিত হলো।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর এ সদস্য বলেন, ‘করোনাকালে অনেক কিছুই হারাতে হচ্ছে। আরও হারাতে হবে হয়তো। মানুষ বেঁচে থাকার লড়াই করতে গিয়ে গোটা পৃথিবীকে থমকে দিয়েছে। আবার বেঁচে থাকার প্রশ্নেই নতুন নতুন কৌশল অবলম্বন করতে হচ্ছে। কারণ অর্থনীতি টিকলে সব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা সহজ হবে। আমি দেখছি, কৃষকরাই সে চ্যালেঞ্জ বেশি মোকাবিলা করছে। নানা প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও কৃষকরা দমে যাননি। তারা মাঠে-প্রান্তে কাজ করে খাদ্যের জোগান দিচ্ছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে। করোনার বিশ্বপরিস্থিতি সবার জানা। ইউরোপ-আমেরিকায় অর্থনীতির ধস, উন্নয়ন থমকে গেছে। বাংলাদেশ কিন্তু এখনও সেই জায়গায় যায়নি। সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ মানুষকে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সহায়তা করছে। করোনাকালে বাজেটে নতুন সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। প্রণোদনার ব্যবস্থা করা হয়েছে, যার আওতায় কৃষক, শ্রমিকরাও আছেন। এই প্রণোদনার সুফল তারা পাচ্ছেন। হয়তো, সামনে প্রণোদনার বিষয়ে আরও ভাবতে হবে।’

সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, ‘জনজীবনে স্বাভাবিকতা ফিরতে শুরু করেছে। মানুষ কাজে ফিরছে। হয়তো, দ্রুততম সময়ের মধ্যে সবই স্বাভাবিক হবে। তবে স্বাভাবিকতায় ফিরলেও নানা চ্যালেঞ্জ সামনে আসবে। বাণিজ্য-অর্থনীতি নিয়ে ভাবতে হবে। মনে রাখতে হবে, আগের অনেক ধারাই বাতিল হবে। নতুন নিয়মে সম্পৃক্ত হতে হবে আমাদের। বিশ্ববাণিজ্যে মনোযোগ বাড়াতে হবে। কৃষিজাত পণ্যে বিশ্ববাজার ধরতে হবে। তাহলেই কৃষক বাঁচবে। কৃষক বাঁচলে দেশও বাঁচবে।’

সোহাগ / ১৫-০৯-২০২০/ আলোচিত সংবাদ।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.